বাংলাদেশের দেশের মত উন্নয়নশীল দেশের জন্য বেকারত্ব একটা জঠিল সমস্যা। আর এর কোন সহজ সমাধানও নেই, বেকারত্ব সমস্যা সমাধানে চাই দেশের জনশক্তিকে কাজে লাগানো কিন্তু আমাদের অবকাঠামোগত সমস্যা ও পর্যাপ্ত বিনিয়োগের অভাবে তা সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। তাই বেকারত্বের সমস্যা সমাধান করতে আমাদের দেশে freelancer এর সংখ্যা যদি বৃদ্ধি করা যেতে পারে, তাহলে আমাদের দেশের বিশাল এক জনশক্তির কাজের অভাব পূরণ হবে। আর freelancing বা outsourcing করে নিজে যেমন আর্থিক সচ্ছল হওয়া সম্ভব, তেমনি দেশের অর্থনীতিও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের দ্বারা দেশের আর্থসামাজিক উন্নতি সম্ভব। নিজের ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য একজন freelancer সহায়ক ভুমিকা পালন করতে পারেন।

Freelancing বা outsourcing মূলত এক ধরনের পেশা যেখানে আপনি অনলাইনে নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে অন্যের জন্য বা নির্দিষ্ট কোন কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

Freelancing অন্যান্য চাকুরীর ন্যায়, কিন্তু এখানে কোন নির্দিষ্ট বেতন ভাতাদি, সময়, কোন চাপ নেই, আপনার প্রয়োজন হলে আপনি কাজ করলেন বা প্রয়োজন নেই কাজ করলেন না।

অর্থাৎ এখানে কোন নির্দিষ্ট employer নেই, আপনি যখন যার কাছে থেকে কাজ পাবেন বা নিবেন, তিনিই হচ্ছে আপনার employer।

আপনার দক্ষতা অনুসারে আপনি যেকোন freelancing marketplace হতে প্রয়োজনীয় কাজ নিতে পারবেন। আর সবচেয়ে ভালো বিষয় হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং করার জন্য নির্দিষ্ট কোন যায়গায় যাওয়ার প্রয়োজন নেই।

অর্থাৎ আপনাকে কোন অফিসে যেতে হবে আপনি আপনার যায়গায় থেকেই freelancing এর কাজ করতে পারেন, এর জন্য আপনার বাড়িই হচ্ছে আপনার অফিস।

আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় হচ্ছে একজন freelancer হিসেবে আপনি যে ৫টি কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

কেন আপনি এই ৫টি পেশার মধ্যে যেকোন একটি পেশা বা কাজ নির্বাচন করে সফলতার সাথে বিভিন্ন freelancing marketplace এর অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

Freelancing করতে কি কি দক্ষতার প্রয়োজন:

Freelance এ কাজ করতে চাইলে আপনার কাজের ধরণ অনুসারে আপনাকে দক্ষ হতে হবে। আপনার দক্ষতার উপর ভিত্তি করে একজন bayer কাজ ও অর্থ দিবেন।

এ জন্য অবশ্যই আপনাকে পেশা নির্বাচন করার আগে আপনি কোন বিষয়ে দক্ষ ও কোন বিষয়গুলিতে আপনার আগ্রহ আছে সেগুলি বিবেচনায় নিয়ে আপনাকে পেশা বা কাজ নির্বাচন করতে হবে।

Freelancing এ career গড়তে আপনাকে communication skills বাড়াতে হবে, কেননা আপনি শুধু কাজ জানলেই হবে না আপনার communication skills থাকা অত্যান্ত জরুরী।

আপনি সঠিক ও শুদ্ধভাবে communication করতে না পারলে কাজ পাবেন না। আর সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আপনাকে প্রতিনিয়ত সময়ের সাথে আপডেট থাকতে হবে ও bayer কি চায় তা ভালোভাবে বুঝতে হবে।

Freelancer হিসেবে যে ৫টি কাজ নির্বাচন করতে পারেন:

Freelancer হিবেসে পেশা গ্রহণ চাইলে আপনি কোন বিষয়ে আপনি পেশা নির্ধারন করবেন তা আপনাকেই ভাবতে হবে। তবে আপনি যে কাজ করতে ইচ্ছুক সেই কাজে আপনার কতটুকু আগ্রহ আছে ও ঐ কাজের ভবিষৎ সম্পর্কে আপনার জানা থাকা অত্যান্ত জরুরী।

আবার এমন পেশা বা কাজ নির্বাচন করা উচিৎ হবে না যে কাজ কিছু দিনের জন্য স্থায়ী। আসুন জেনে নেই freelancer হিসেবে যে ৫টি কাজ বা পেশা আপনি নির্বাচন করতে পারেন।

০১. Graphic designer হিসেবে পেশা নির্বাচন:

freelance graphic designer

Graphic designer পেশা হিসেবে অত্যান্ত জনপ্রিয়। Graphic designer হিসেবে career গড়তে চাইলে আপনাকে Adobe Photoshop, Adobe illustrator কাজগুলো ভালোভাবে জানতে হবে এবং সেই সাথে বিভিন্ন Online Marketplace এ কি ধরনের কাজের চাহিদা রয়েছে তা জানলে আশা করি আপনার কাজের অভাব হবে না।

Freelance graphic designer হিসেবে কাজ করে আপনি অনেক বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন, কেননা এই ধরনের কাজ সারা জীবনের জন্য থেকে যাবে। প্রায় সব ধরনের কাজে graphic design এর কাজের প্রয়োজন হয়।

Marketing থেকে শুরু করে, পণ্য ক্রয়-বিক্রয়, Website design and development এর নানা কাজে graphic design এর কাজ প্রয়োজন। অনলাইনে প্রায় সব ধরনের কাজের সাথে কোন না কোনভাবে graphic design এর কোন কাজ জরিত।

একজন graphic designer হিসেবে Logo design, banner design, background remove, branding design, publishing design, animation design, print design ইত্যাদি কাজ করে আপনি অন্যদের থেকে বেশি আয় করতে পারেন।

কেননা বর্তমানে এই ধরনের কাজের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে এবং দিন দিন এর চাহিদা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

০২. Website design and development হিসেবে পেশা নির্বাচন:

Website design and development

একজন freelancer হিসেবে আমরা জানি website কতটা গুরুত্বপূর্ণ আমাদের জন্য। বিভিন্ন কোম্পানির branding থেকে শুরু করে marketing এমনকি তথ্য আদান-প্রদান ও লেনদেন ওয়েব সাইটের মাধ্যমেই করা হয়।

Website design and development কাজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে এবং এই কাজের Value ও অনেক বেশি।

আপনি প্রয়োজনীয় machine language বা programming language জেনে ওয়েব সাইট design and development এর কাজ করে অনেক বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

তবে আপনি programming language না জেনেও WordPress, squarespace, shopify এর মতো CMS ব্যবহার করেও  website design and development এর কাজ করতে পারবেন। শুধু চাই আপনার শেখার আগ্রহ ও চাহিদা।

 আপনি একজন wordpress developer, shopify web designer and developer, squarespace designer and developer হিসেবে পেশা নির্বাচন করতে পারেন।

এগুলি দিয়েই আপনি website design and development এর কাজ শুরু করে দিতে পারেন, পরে আপনি ধীরে ধীরে নিজের দক্ষতা বাড়িয়ে পূর্ণাঙ্গ কাজে লেগে যেতে পারেন।

০৩. Content creator হিসেবে পেশা নির্বাচন:

freelance content creator

Content creator হচ্ছে অডিও, ভিডিও, ছবি, ব্যানার, নিউজ, পোস্ট ইত্যাদি তৈরি করে বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের কাছে পৌছিয়ে তা থেকে অর্থ উপার্জন করা।

Content creator এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে একজন YouTuber তিনি বিভিন্ন বিষয়ে ভিডিও তৈরি করেন ও সেই ভিডিও কন্টেন্টগুলো অন্যান্য ব্যবহারকারীরা দেখেন এবং সেই ভিডিওগুলোতে বিভিন্ন কোম্পানির advertisement দেখায় আর সেই advertisement দেখানোর ফলে তিনি google adsense এর মাধ্যমে তিনি অর্থ উপার্জন করেন।

এভাবে আপনি youtube facebook এর জন্য content তৈরি করে নানাভাবে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এছাড়াও নিজের ওয়েব সাইট তৈরি করে সেখানে ব্লগিং শুরু করে দিতে পারেন কিংবা Google blogger website বানিয়ে content তৈরি করার মাধ্যমেও আপনি আয় করতে পারেন।

আর আমরা যে আপনাকে আমাদের এই অ্যার্টিকেলটি পড়াতে নিয়ে এসেছি এটিও কিন্তু content creator এর মধ্যে পড়ে। এভাবে আপনি blogging, audio, video, images তৈরি করে বিভিন্ন মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।

শুধুমাত্র google adsense থেকেই নয়, আপনার blog যদি অনেক জনপ্রিয় হয়ে যায়, তবে আপনি অনেক লোকাল পণ্য বা কোম্পানির বিভিন্ন বিজ্ঞাপনও সেখানে প্রচারণা করে আয় করতে পারবেন।

০৪. Digital marketer হিসেবে পেশা নির্বাচন:

freelance digital marketing

Marketing অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়, কেননা আপনি যা কিছু তৈরি করুন না কেন, তা যদি মানুষের কাছে পৌছাতে না পারে বা মানুষ যদি আপনার পণ্য সম্পর্কে না জানে তাহলে কোন লাভই হবে না।

তাই মানুষের কাছে পৌছানো বা পরিচিত হতে মার্কেটিং হচ্ছে একটি আর্দশ উপায়।

আর এই কারনে দিন দিন marketing এর জনপ্রিয়তার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর সেই সাথে মার্কেটিং এর নতুন নতুন পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া দেখা যাচ্ছে।

আর যেহেতু আজকের দিনে বেশিরভাগই মানুষই অনলাইন কেন্দ্রীক তাই মার্কেটিং এর জন্য digital marketing অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ও জনপ্রিয় একটি মাধ্যম।

আপনি digital marketing এর মাধ্যমে আপনার নিজস্ব পণ্য ছাড়াও অন্য কোন company এর পণ্যের প্রচারণা করে তা হতে আয় করতে পারেন।

পার্থক্যভেদে বিভিন্ন content creator তার প্রোডাক্টের জন্য মার্কেটিং করে থাকেন, আপনি digital marketing সম্পর্কে দক্ষ হলে, তাদের marketing করে দিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

‌আর বিভিন্ন ধরনের marketing এর মধ্যে facebook marketing, instagram marketing, youtube marketing করে আপনি অনেক বেশি আয় করতে পারবেন।

আপনি যদি মার্কেটিং দক্ষ হয়ে ওঠেন তবে দেশের ও দেশের বাইরের বিভিন্ন ওয়েব সাইটের মার্কেটিং বা SEO করতে পারবেন।

SEO হচ্ছে Search Engine Optimization অর্থাৎ একটি ওয়েব সাইটের বিভিন্ন কন্টেন্ট যাতে সহজেই Google Search Engine এর মাধ্যমে খুঁজে পায় এ জন্য প্রয়োজনীয় কাজ করা।

SEO করেও আপনি প্রচুর আয় করতে পারবেন এবং SEO এর কাজের চাহিদা ও ধরণ দিন দিন পরিবর্তীত হচ্ছে।

০৫. Data entry পেশা হিসেবে নির্বাচন:

freelance data entry

আপনি যাইলে আপনার দক্ষতার উপর ভিত্তি করে data entry এর কাজ করতে পারেন। বিভিন্ন কোম্পানি বা প্রতিষ্টান তাদের প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ ও তাদের ওয়েব সাইট ব্যবহারকারীদের নানা তথ্য প্রদান করতে অনলাইন থেকে অনেক তথ্য সংগ্রহ করে।

আপনি সেই তথ্য সংগ্রহে তাদের সহায়তা করে এ থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

যেমন মনে করুন কোন কোম্পানি তাদের ওয়েব সাইট ব্যবহারকারীদের কিংবা তাদের প্রতিষ্টানের সদস্যদের জন্য কোন অঞ্চলে কতজন ডাক্তার রয়েছে তাদের নাম, পদবি, যোগাযোগের ঠিকানা ইত্যাদির তালিকা

প্রস্তুত করবে, আপনি অর্থের বিনিময়ে সেই সকল তথ্য সংগ্রহে ঐ প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা করতে পারেন। এভাবে আপনি data entry কাজকে freelance পেশা হিসেবে নির্বাচন করতে পারেন।

Freelancer হিসেবে কোন পেশাটি উত্তম ও আয়ের পরিমাণ অধিক:

কেউ আপনাকে নিশ্চিত করে বলতে পারবে না যে এই কাজ বা পেশা নির্বাচন করলে অন্যান্য কাজে চেয়ে আপনার আয় বেশি হবে। আপনার আয় সম্পূর্ণ নির্ভর করবে আপনার কাজের চাহিদা ও দক্ষতার উপর।

আপনি কোন কাজে ক্লায়েন্টকে যত বেশি দক্ষতার পরিচয় দিবেন আপনার কাজের পরিমাণ তত বৃদ্ধি পাবে ও সেই সাথে আপনার আয়ও বাড়তে থাকবে।

তবে আপনাকে অনেকে বলতে পারে যে এই কাজে অনেক বেশি আয় সম্ভব, তবে তিনি হয়তো ঐ কাজে অনেক দক্ষ বলেই অধিক আয় করতে পেরেছেন। তবে আপনি ঐ কাজে আপনি দক্ষ নাও হতে পারেন।

তাই আপনার যে কাজটি ভালো লাগে বা যে কাজ করতে আপনি মজা পান এরকম কোন কাজ নির্বাচন করে দক্ষতা অর্জন করতে থাকুন, দেখবেন আপনিও এ থেকে ভালো আয় করতে পারবেন।

শেষ কথা:

আপনি যে কাজ বা পেশা নির্বাচন করেন না কেন সেটা অবশ্যই সময় উপযোগি হতে হবে। সেই সাথে আপনাকে ঐ কাজে প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করতে হবে। ঐ পেশা বা কাজকে ভালোবাসতে হবে, তবেই আপনি সেই কাজে সফল হতে পারবেন এবং আপনি আপনার কাঙ্খিত উপার্জন করতে পারবেন।

শেয়ার করুন!

লেখক সম্পর্কে:

স্বাগতম! মো: নাজমুল ইসলাম একজন ওয়েব ডেভলোপার। আমি দীর্ঘদিন ধরে ওয়ার্ডপ্রেস, পিএইচটি, পাইথন ও অন্যান্য প্রোগ্রামিং ভাষা নিয়ে কাজ করছি। এই ওয়েব সাইটে আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকে আপনাদের জন্য বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সেরা কন্টেন্ট লিখব ইনশাআল্লাহ!

আপনার মতামত লিখুন!

Your email address will not be published. Required fields are marked

{"email":"Email address invalid","url":"Website address invalid","required":"Required field missing"}
error: বিষয়বস্তু কপিরাইট সুরক্ষিত !!